গুগলের সবশেষ ১২ টিপস : অনলাইনে থাকুন সম্পূর্ণ নিরাপদ

গুগলের সবশেষ ১২ টিপস : অনলাইনে থাকুন সম্পূর্ণ নিরাপদ

অনলাইনে তথ্য চুরির ঘটনা দিন দিন বাড়ছে। যে কারণ ইন্টারনেট ব্যবহার ও কেনাকাটা নিয়ে উদ্বেগ বেড়েছে সবার মাঝে। সম্প্রতি অনলাইন নিরাপত্তা নিয়ে বেশকিছু বিশেষ টিপস প্রকাশ করেছে গুগল। টিপস-ট্রিকস পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো টিপসগুলো। এছাড়া, পড়তে পারেন-

আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের সুরক্ষা নিশ্চিতের সময় এখনই! জেনে নিন যা না জানলেই নয়!

 

অনলাইনে নিরাপদ থাকতে গুগলের সর্বশেষ ১২ টিপস

 

১. পাবলিক কম্পিউটার

পাবলিক কম্পিউটার ব্যবহারের ক্ষেত্রে খুব সতর্ক থাকতে হবে। ব্যক্তিগত কোনো তথ্য পাবলিক কম্পিউটারে একদমই ব্যবহার করবেন না। সে সমস্ত তথ্যই পাবলিক কম্পিউটারে ব্যবহার করুন যা আপনার কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।

 

২. শক্তিশালী পাসওয়ার্ড

অনলাইনে নিরাপদ থাকার প্রথম ধাপই হল একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা। অবশ্যই অপেক্ষাকৃত বড়, বর্ন, সংখ্যা ও চিহ্ণ ব্যবহার করে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

 

 ৩. ভিন্ন ভিন্ন পাসওয়ার্ড

বিভিন্ন ওয়েবসাইট বা শপিং সাইটে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে একই পাসওয়ার্ড বারবার ব্যবহার না করে ভিন্ন ভিন্ন অপেক্ষাকৃত জটিল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। পাসওয়ার্ড ভুলে যাওয়ার সমস্যা থবকল সুরক্ষিত স্থানে লিখে রাখুন।

 

৪. টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন

হ্যাকারদের হাত থেকে ওয়েব অ্যাকাউন্টরে তথ্য এবং ছবি নিরাপদ রাখতে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন পদ্ধতি ব্যবহার করুন। এর মাধ্যমে প্রতিবার লগইন করার সময় মোবাইল ফোনে পিন নম্বর এসএমএস কিংবা কল করে জানানো হয় যা ছাড়া কেউই লগইন করতে পারবে না।

 

৫. সার্চ ফিল্টার 

গুগল ব্রাউজারের ফিল্টার সার্চ অপশনটি ব্যবহার করে নিরাপদ থাকতে পারেন অনেক ম্যালওয়ার ও ফিশিং সাইট থেকে। গুগলের ‘সেফ সার্চ ফিল্টার’ অপশনটি চালু করেই এই বাড়তি নিরাপত্তা পেতে পারেন।

 

৬. ইউটিউবের ভিডিও ফিল্টার

গুগল ব্রাউজারে সার্চ ফিল্টার করার মতো ইউটিউবের ভিডিও ফিল্টার করে দেখতে পারেন।

 

৭. প্লাগ-ইন যোগ করার সতর্কতা

ব্রাউজারে প্লাগ-ইন যোগ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক থাকুন। তৃতীয় পক্ষের কোনো প্লাগ-ইন থেকে ভাইরাস বা ম্যালওয়্যার আপনার কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই ব্রাউজারে প্লাগ-ইন যোগ করার আগে পাবলিশার ও এর অন্যান্য তথ্য নিশ্চিত হয়ে নিন।

 

৮. সন্দেহজনক কন্টেন্ট

ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময় অনেকসময় বিভিন্ন সন্দেহজনক কিংবা আপত্তিকর কনটেন্ট চলে আসে। এগুলোর ব্যাপারে অবশ্যই সতর্ক থাকুন এবং সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইটকে অবহিত করুন।

 

৯. ব্রাউজার আপডেট রাখুন

ওয়েব ব্রাউজারের পুরনো সংস্করণগুলোতে নিরাপত্তা ত্রুটি থেকে যাওয়া খুব স্বাভাবিক। যে কারণে পুরোনো ব্রাউজার ব্যবহার করলে হ্যাকারদের হাতে চলে যেতে পারে আপনার গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর তথ্য। সে জন্য যে ওয়েব ব্রাউজারই ব্যবহার করুন না কনে,  তা নিয়মিত আপডেট করুন এবং আপডেটেড রাখুন।

 

১০. লগ-আউট ও ব্রাউজার শাটডাউন

ব্যবহারের পর অবশ্যই সাইন-আউট করুন এবং ব্রাউজার বন্ধ করে দিন।

 

১১. লগ-ইন তথ্য সেভ নয়

ভুলেও ব্রাউজারের স্বয়ংক্রিয় ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ পদ্ধতি ব্যবহার করবেন না। প্রয়োজনে কোথাও লিখে রাখুন কিন্তু আপনার ব্রাউজারকে এই দায়িত্ব দেয়ার কথা চিন্তাও করবেন না।

 

১২. নিরাপদ ওয়েবসাইট

ব্রাউজ করার জন্য নিরাপদ ওয়েবসাইট খুঁজে বের করুন। সাধারণত যেসব ওয়েবসাইট https://  দিয়ে শুরু হয় সেগুলো নিরাপদ ওয়েবসাইট। এছাড়া যে সাইটে ব্রাউজারের ‘প্যাডলক’ আইকন দেখা যায়, সে সাইটগুলোও ব্রাউজ করার জন্য নিরাপদ।

 

 

মাহবুব আলম

ই-মেইল: contact@atpoure.com

Leave a Reply